মুচির কাজ করছে মুক্তাগাছার অবহেলিত বঞ্জিত শিশুরা

মুচির কাজ করছে মুক্তাগাছার অবহেলিত বঞ্জিত শিশুরা

মেহেদী হাসান(১৬) ময়মনসিংহ –              মুক্তাগাছার অনেক শিশু মুচির কাজ করছে। এ ছাড়া অনেক শিশু বাস, টেম্পো, হিউম্যান হলার এসব যানবাহনে সাহায্যকারী হিসেবে কাজ করছে।
এই বয়সে এদের স্কুলে যাবার কথা কিন্তু তারা অভাবের কারনে মুচির কাজ করছে বলে যানিয়েছে কয়েকজন শিশু শ্রমিক।

শিশু শ্রমিকরা বলেন আমাদের সংসারে অভাবের কারনে আমাদরে বাবা-মায়েরা এই কাজ করতে পাঠিয়েছ। তারা অল্প বয়স থেকেই মুচির কাজ করছে। এদের কেও আবার স্কুলের আশেপাশে যাওয়ার সুযোগ পায়নি।

কিছু অসাদু ব্যাবসায়িরা শিশু শ্রমিকদের কাজে লাগাচ্ছে,কারন এদের বেশি কাজ করিয়ে কম মাইনে দেয়া যায় । এই শিশুরা শুধু মুচির কাজ নয় তাদের নানা ধরনের কাজ করতে দেখা গেছে।

অভিজ্ঞমহল জানান, আইনে শিশুশ্রম সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। শিশুশ্রম বন্ধ করতে আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ হওয়া দরকার।আইনের সঠিক প্রয়োগ হচ্ছে কি না, এটি পর্যবেক্ষণ করতে হবে। এবং অবহেলীত বঞ্জিত শিশুদের পূর্ণবাসন করা জরুরী। এদের কে বিদ্যালয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিতে । এদের সরকারী খরচে লেখাপড়ার গুযোগ করে না দিলে দেশ রসাতলে যাবে । সরকারের পাশাপাশি সাধারন মানুষ কেও হাত বারিয়ে দিতে হবে । এবং শিশু শ্রম ঠেকাতে সকলকে একসাথে কাজ করতে হবে। মালিক ও শ্রমসংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলোও এ বিষয়ে যথেষ্ট আন্তরিক নয়।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) শিশু শ্রম জরিপ তথ্য সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা ১৭ লাখ। এর মধ্যে ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশু পূর্ণকালীন শ্রমিক হিসাবে কাজ করছে। সব মিলিয়ে দেশে ৩৪ লাখ ৫০ হাজার শিশু কোনো না কোনোভাবে শ্রমের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।

এসবি-সুবিধা বঞ্চিত শিশু/১৬ জানুয়ারী/মেহেদী

আরো খবর: