সর্বশেষ:

বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে ২০ জানুয়ারি

বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে ২০ জানুয়ারি

মনিরুজ্জামান রাফি(১৫),নেত্রকোণা: আজ ২০ শে জানুয়ারি শহীদ আসাদ দিবস ১৯৬৯ সালের এই দিনে পাকিস্তানী স্বৈরশাসক আইয়ুব খান সরকারের বিরুদ্ধে এ দেশের ছাত্রসমাজের ১১ দফা কর্মসূচীর মিছিলের নেতৃত্ব দিতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে জীবন দেন অকুতোভয় ছাত্রনেতা আসাদুজ্জামান আসাদ। পুরো নাম আমানুল্লাহ মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান আসাদ। তবে তিনি শহীদ আসাদ নামেই অধিক পরিচিত ব্যক্তিত্ব। ১৯৪২ সালে ১০ই জুন নরসিংদী জেলায় শিবপুর থানার ধানুয়া গ্রামে আসাদের জন্ম। ২০ জানুয়ারি, ১৯৬৯ইং তারিখ দুপুরে ছাত্রদেরকে নিয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের পার্শ্বে চাঁন খাঁ’র পুল এলাকায় মিছিল নিয়ে অগ্রসর হচ্ছিলেন আসাদুজ্জামান।

পুলিশ তাদেরকে চাঁন খাঁ’র ব্রীজে বাঁধা দেয় ও চলে যেতে বলে। কিন্তু বিক্ষোভকারী ছাত্ররা সেখানে প্রায় এক ঘন্টা অবস্থান নেয় এবং আসাদ ও তার সহযোগীরা স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে। ঐ অবস্থায় খুব কাছ থেকে আসাদকে লক্ষ্য করে এক পুলিশ অফিসার গুলিবর্ষণ করে। তৎক্ষণাৎ গুরুতর আহত অবস্থায় আসাদকে হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আসাদের মৃত্যু পরিবেশকে আরো ঘোলাটে করে তুলে ও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনায় রূপান্তরিত হয়। হাজারো ছাত্র-জনতা আসাদের মৃত্যুতে একত্রিত হয়ে পুণরায় মিছিল বের করে এবং শহীদ মিনারের পাদদেশে জমায়েত হয়। কেন্দ্রীয় প্রতিরোধ কমিটি তাকে শ্রদ্ধা জানাতে ২২, ২৩ ও ২৪ জানুয়ারি সারাদেশে ধর্মঘট আহ্বান করে। ধর্মঘটের শেষ দিনে পুলিশ পুণরায় গুলিবর্ষণ করে। ঐ সময় ছাত্রজনতা এতই উত্তেজিত ছিল যে, ফলশ্রুতিস্বরূপ আসাদের মৃত্যুতে ফিল্ড মার্শাল আইয়ুব খান সরকার দু’মাসের জন্য ১৪৪-ধারা আইনপ্রয়োগ স্থগিত রাখতে বাধ্য হয়। শোকাতুর ও আবেগে আপ্লুত অগণিত ছাত্র-জনতার মিছিলে শহীদ আসাদের রক্তমাখা শার্ট দেখে বাংলা সাহিত্যের আধুনিক কবিগন আসাদকে নিয়ে লিখেছেন নানা কবিতা উপন্যাস, আসাদকে নিয়ে হেলাল হাফিজ লিখেছেন বহু আলোচিত বিখ্যাত কবিতা ‘নিষিদ্ধ সম্পাদকীয়’। শহীদুল্লা কায়সার লিখেছেন ‘সমুদ্রে যখন ঝড় উঠে’। আ ন ম গোলাম মোস্তফা লিখেছেন ‘কবরের ঘুম ভাঙে’।

শহীদ আসাদের রক্তমাখা শার্ট নিয়ে কবি শামসুর রাহমান রচনা করেছেন কালজয়ী কবিতা ‘আসাদের শার্ট’। আসাদের রাজনৈতিক জীবন এবং ব্যক্তিজীবন নিয়ে এই কবিতার নাম দিয়েই নির্মিত হয়েছে তথ্যচিত্র ‘আসাদের শার্ট’। এতে তরুণ বিপ্লবী শহীদ আসাদকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন তত্কালীন ছাত্রনেতা রাশেদ খান মেনন, অধ্যাপক শাখাওয়াত আলী খান, শামসুজ্জামান মিলন, হায়দার আকবর খান রনো, হায়দার আনোয়ার খান রনো, তোফাজ্জল হোসেন ভূঁইয়া। ১৯৭০ সালের ১৫ জানুয়ারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০ জানুয়ারি শহীদ আসাদ দিবস হিসেবে পালনের জন্য পূর্ব বাংলা বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়ন ঐদিন পূর্ণ দিবস হরতাল আহ্বান করে। এরপর থেকে এ দিনটিকে শহীদ আসাদ দিবস হিসাবে পালন করা হয়।

আরো খবর: