অনিশ্চয়তায় বেড়ে উঠছে দুইভাই ।

অনিশ্চয়তায় বেড়ে উঠছে দুইভাই ।

সবুজ আহম্মেদ(১৭),পীরগঞ্জ(ঠাকুরগাঁও): যে সময় হাতে থাকার কথা বই খাতা আর কলম, সে সময় চায়ের দকানে কাজ করছে ১২ বছরের শিশু সাদেকুল। প্রতিদিন তাকে চায়ের কাপ পরিষ্কার থেকে শুরু করে চা বানিয়ে খাওয়াতে হয় কষ্টমারদের। সাদেকুল কিছুটা চঞ্চল সভাবের বাড়ি পঞ্চগর বোদা থানার তেলিপাড়া চন্দনবাড়ী। সে জানায় পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ার সময় অভাবের সংসারে বাবা নিরুপায় হয়ে তাকে বলে তুই পড়াশোনা করবি নাকি দোকানে কাজ করবি।

সদেকুর প্রথমে পড়াশোনার কথা বললেও পরে বাবার অভাব দেখে তার ১০ বছর বয়সি ছোট ভাই সামিউলকে নিয়ে কাজে নেমে পরে। এর প্রেক্ষিতে বর্তমানে সে পীরগঞ্জ থানার চৌরাস্তা মড়ে শহিদের চায়ের দোকানে কাজ করে। আর এদিকে ছোট ভাই সামিউল কাজ করে মাহবুবুর রহমান এর পানের ষ্টোলে। সামিউল খুব সাদা-সিদা ও শান্ত প্রকৃতির। আগে পড়াশোর ইচ্ছে থাকলেও এখন আর তেমন ইচ্ছে প্রকাশ করেনি শিশু সামিউল। তার আচরণে মুগ্ধ মানুষ তার অসাধারণ পানের বানানোর দক্ষতা সবত্রই বলে দেয় পড়াশোনা করলে সামিউল অনেক বড় হতে পাড়তো। পান ষ্টোলের মালিক মাহবুবুর রহমান জানায় অভাবের কারনেই শিশুটি আজ এখানে এসেছে আমি তাকে নিজের মতই আদর স্নেহ করি।

আরো খবর: