নির্যাতনের যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে গৃহকর্মী শিশু তাজিম

নির্যাতনের যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে গৃহকর্মী শিশু তাজিম

মো:হযরত আলী, লালমনির হাট .প্রতিনিধি:- ছোট্ট শিশু তাজিম বয়স সাত।হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতারাচ্ছেন । শীর্ণ হাত-পা, চোখে-মুখে আতঙ্কের ছাপ। শুধু চোখ দুইটি দিয়ে সবাইকে তাকাচ্ছেন। পেটের নিচে কিডনির জায়গায় কাটা দাগ, ডান হাতে লোহার রড ঢুকানো,পায়ের হাটু দুইটি ফুলে গেছে, মাথায় অসংখ আঘাতের চিহ্ন। পুরো দেহে জুড়ে কাটার সাদা দাগ। ঠিকানা বিহিন শিশুটিকে গত দুই দিন আগে অজ্ঞাত এক ব্যাক্তি হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করেদেন।

ছোট্র শিশু তাজিম হাসপাতালে বেডে শুয়ে জানান, কাজ করতে না পারায় গৃহকর্ত্রী এমি আক্তার লোহার রড উত্তপ্ত করে ছ্যাঁকা দিয়েছেন। চাকুদিয়ে প্রতিদিন আমার দেহে আঘাত করেন। রড দিয়ে আমার একটি হাত ভেঙ্গে দেয়। প্রতি দিন চলে অমানুষিক নির্যাতন। জানাগেছে, লালমনিহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার পুর্ব সিন্দুর্নাগ্রামের রুস্তম খন্দকারে মেয়ে এমি আক্তার (৩০) ও তার স্বামী ব্যবসায়ী শিমুল মিয়া (৪০) আটমাস আগে ঢাকা উত্তরায় তাজিম (৮) গৃহকর্মী কাজে নেন। কাজ করতে না পাড়ায় উত্তরার ভাড়াটে বাসায় চলে প্রতিদিন অমানুষীক নির্যাতন।

এর আগে এমি আক্তার তার নিজ গ্রাম পুর্ব সিন্দুর্নার গ্রামের জালাল উদ্দিনের মেয়ে নাছিমা খাতুন কে গৃহকর্মী কাজে নিয়ে তাকে অমানুষিক নির্যাতন করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। শিশু গৃহকর্মী তাজিম পাটগ্রাম উপজেলার জতবেড় ইউনিয়নে টংটিং ডাঙ্গা গ্রামের ইউছুব আলী ও আশা খাতুনের মেয়ে।  সংবাদ পেয়ে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তাকে উদ্ধার করে পাটগ্রাম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বর্তমান চিকিৎসাধীন রয়েছেন। অভাবের তাড়নায় আশা খাতুন ৬ কন্যা সন্তানের মুখে দু বেলা দু মুটো খাবারের জন্য অন্যের বাসায় কাজ করতে পাঠান।

তার ৩ সন্তান বর্তমানে বিভিন্ন জায়গায় অন্যর বাসায় কাজ করেন। শিশু গৃহকর্মী তাজিমের মা আশা খাতুন জানান,  আমার মেয়েকে অভাবের তাড়নায় গত আট মাস আগে জগতবের উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আমিনুর মাষ্টারের মাধ্যমে তাজিম কে ঢাকায় পাঠাই। তিনি আরও বলেন তারা ঢাকা কোথায় থাকেন জানিনা।

শিশু তাজিম কে গোপনে হাতীবান্ধা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করার অপরাধে হাতীবান্ধা থানা পুলিশ উপজেলার বাড়াই পাড়া গ্রামের আব্দুল হাই মাষ্টারের ছেলে রাজু মিয়া (৩০) কে আটক করেন। পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি অবনি কুমার গৃহকর্মী নির্যাতনের ঘটনার সত্যাতা নিশ্চত করে বলেন, ঢাকা উত্তরার পশ্চিম থানার ওসির সাথে যোগাযোগ চলছে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরো খবর: