সর্বশেষ:

কুমিল্লায় শিশু শিহাব হত্যা মামলায় দুইজনের ফাঁসি

কুমিল্লায় শিশু শিহাব হত্যা মামলায় দুইজনের ফাঁসি

সবুজ বার্তা ডেস্কঃ কুমিল্লায় শিশু শিক্ষার্থী চাঞ্চল্যকর শিহাব হত্যা মামলায় দুইজনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার বিকালে কুমিল্লার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক আজিজ আহমদ ভূঁইয়া এ আদেশ দেন।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছে- জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শিদলাই গ্রামের মোখলেছুর রহমানের ছেলে কুদ্দুছুর রহমান রবিন (২০) ও আদর্শ সদর উপজেলার রত্নাবতী গ্রামের শাহ আলমের ছেলে মাহে আলম নয়ন (১৯)।

২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি সন্ধ্যায় জেলার আদর্শ সদর উপজেলার রত্মাবতী গ্রামের শিশু ছাত্র রাশেদুল ইসলাম শিহাবকে পিকনিক থেকে অপহরণ করে একই গ্রামের রত্মাবতী আলী আমেনা হাইস্কুলের ১০ম শ্রেণির ছাত্র নয়ন ও ফয়সল। শিশু শিহাব কান্নাকাটি শুরু করলে নয়ন ও ফয়সল তাদের গায়ের চাদর দিয়ে শিহাবের চোখ-মুখ বেঁধে ফেলে। এতে সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

পরে শিহাবকে রত্নাবতী গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত বাথরুমের ট্যাংকির ভেতর ফেলে রাখে। এরপর তাদের সঙ্গে যোগ দেয় রবিন ও হৃদয়। আর এ ফাঁকে নয়ন মসজিদে গিয়ে শিহাবের খোঁজে মাইকিং করতে থাকে। নয়ন মাইকে বলে- শিহাব তুমি যেখানেই থাকো না কেন তাড়াতাড়ি ফিরে এসো। তোমার জন্য তোমার মা-বাবা কান্নাকাটি করছেন।

এসময় অন্ধকার ট্যাংকিতে শিহাব নড়াচড়া করছে দেখে রবিন দোকান থেকে ব্লেড কিনে এনে তাকে জবাই করে। শিশুটির মৃত্যু নিশ্চিত করতে হৃদয় তার (শিহাবের) গলায় ছুরি চালায়। এরপর ঢাকনা দিয়ে ট্যাংকির মুখ বন্ধ করে লাশ গুম করে রাখা হয়।

এ ঘটনায় শিহাবের বাবা নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে রবিন, নয়ন, ফয়সল, হৃদয়সহ চারজনকে আসামি করে ২০১৩ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি কোতয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওই বছরের ৩১ অক্টোবর আদালতে ৪ আসামির মধ্যে রবিন ও নয়নের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে এবং ফয়সল ও হৃদয় কিশোর অপরাধী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কিশোর আদালতে পৃথক চার্জশিট দাখিল করেন। এদিকে মামলাটি চলমান অবস্থায় একমাত্র ছেলের নৃশংস হত্যাকা-ের শোক সইতে না পেরে গত বছরের ২৮ অক্টোবর নজরুল ইসলাম মারা যান।

আরো খবর: