গলায় ফাঁস কেনো ?

আনাস ইসলাম আপন(১৭), ময়মনসিংহ: উপজেলার বিরাশি গ্রামের একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসার কক্ষ থেকে গতকাল সোমবার দুপুরে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় নাজিম উদ্দিন (১৩) নামের এক ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে মুক্তাগাছা থানা পুলিশ। সে ওই গ্রামের দিনমুজুর শহিদ মিয়ার ছেলে। এ মৃত্যু নিয়ে এলাকায় রহস্য দেখা দিয়েছে।
এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ জানায়, উপজেলার তাঁরাটি ইউনিয়নের বিরাশি গ্রামের হিকিম মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসার হেফজ বিভাগের ছাত্র ছিল নাজিম উদ্দিন। বিশ্ব ইস্তেমা উপলক্ষে মাদ্রাসাটি বন্ধ দেওয়া হয়। রোববার রাতে মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান মাদ্রাসায় ফিরেন। সোমবার সকালে আবার সে বাড়ি ফিরে যান। এর পর সকাল ১০ টায় দরজা বন্ধ অবস্থায় একটি কক্ষে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় নাজিম উদ্দিনের লাশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে মুক্তাগাছা থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়মনসিংহ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহত নাজিমের বাবা শহিদ মিয়া তার ছেলে হত্যার সাথে মাদ্রাসার হুজুর মাহবুব আর এক ছাত্রকে সন্দেহ করেছেন। তার দাবী তারা পরিকল্পিত ভাবে তার ছেলেকে মেরে মাদ্রাসা ঘরের ধর্নার সাথে ঝুলিয়ে রেখেছে। মুক্তাগাছা থানার ওসি আখতার মুর্শেদ সাংবাদিকদের বলেন, মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যু নিয়ে রহস্য রয়েছে তবে ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

এসবি- সারাদেশ/১৭ ফেব্রুয়ারী, ১৭/রিয়া

আরো খবর: